বিএনপি এক রাজনৈতিক দিকপালকে হরালো

সময়: 6:59 am - March 17, 2021 | | পঠিত হয়েছে: 55 বার
বিএনপি এক রাজনৈতিক দিকপালকে হরালো

ঢাকা: বর্তমান দেশের এক প্রবীণ রাজনীতিবিদ হিসেবে পরিচিত ছিলো বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ। তিনি বাংলাদেশের সাবেক একজন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। এর আগে উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

মওদুদ আহমেদ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে অন্যতম ব্যাক্তি। যার কারণে ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদকে বিএনপি’র অভিজ্ঞ পার্লামেন্টারিয়ান ও রাজনৈতিক দিকপাল বলা হয়।

বিএনপি’র শুধু তাই নয় এই প্রবীণ রাজনীতিবিদ অষ্টম জাতীয় সংসদে আইন ও বিচার বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী ছিলেন।মওদুদ আহমেদের জন্ম ১৯৪০ সালের ২৪ মে নোয়াখালী জেলার কোম্পানিগঞ্জ উপজেলায়। তার বাবা মমতাজ উদ্দিন আহমেদ এবং মা বেগম আম্বিয়া খাতুন। ছয় ভাইবোনের মধ্যে মওদুদ আহমেদ চতুর্থ।

দেশের এই সিনিয়র রাজনীতিবিদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মান পাশ করে বৃটেনের লন্ডনস্থ লিঙ্কন্স ইন থেকে ব্যারিস্টার ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। লন্ডনে পড়াশোনা করে দেশে ফিরে নিজেকে আইন পেশায় নিয়োজিত করেন। তথ্য মতে জানা যায়, মওদুদ আহমেদ ব্লান্ড ভিজিটিং প্রফেসর হিসেবে জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ছিলেন।

বিএনপির এই র্শীষ ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ব্যারিস্টার মওদুদ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। ১৯৭১ সালে ইয়াহিয়া খান কর্তৃক আহুত গোলটেবিল বৈঠকে তিনি শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে উপস্থিত ছিলেন।

১৯৭৭ থেকে ৭৯ সালে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সরকারের মন্ত্রী ও উপদেষ্টা ছিলেন মওদুদ। ১৯৭৯ সালে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং তাকে উপ-প্রধানমন্ত্রী করা হয়।

১৯৮১ সালে জিয়াউর রহমান নিহত হন এবং এক বছরের ভেতর হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ রাষ্ট্রক্ষমতা গ্রহণ করেন। ১৯৮৫ সালের নির্বাচনে মওদুদ আহমেদ আবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং সরকারের তথ্য মন্ত্রীর দায়িত্ব পান। এর এক বছর পর ১৯৮৬ সালে তাকে আবারও উপ-প্রধানমন্ত্রী করা হয়। ১৯৮৮ সালে তিনি প্রধানমন্ত্রী হন। ১৯৮৯ সালে তাকে শিল্প মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয় এবং এরশাদ তাকে উপ-রাষ্ট্রপতি করেন।

১৯৯০ সালের ডিসেম্বরে জনরোষের মুখে ক্ষমতা ছেড়ে দেয় এরশাদ সরকার। এরপর জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন নিয়ে ১৯৯১ সালের আবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন মওদুদ আহমেদ।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে মওদুদ আহমেদ বিএনপিতে যোগ দেন। ২০০১ সালে নির্বাচনে তিনি বিএনপি থেকে মনোনয়ন নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পাঁচবারই মওদুদ আহমেদ নোয়াখালী জেলার কম্পানীগঞ্জ উপজেলা থেকে নির্বাচিত হন।

মন্ত্রীত্ব ছাড়াও মওদুদ আহমেদ জিয়াউর রহমানকে বিএনপি প্রতিষ্ঠায় সাহায্য করেছেন। তিনি দলটির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। দেশের এই আলোচিত নেতা হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের জাতীয় পার্টির সংগঠনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন।

প্রসঙ্গত. সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও উপ-রাষ্ট্রপতি এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ আজ মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন। তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। তার মৃত্যের বিষয়টি গণমাধ্যমে নিশ্চিত করেন বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান। তিনি বলেন, আমরা আজ গভীর ভাবে শোকাহত। ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদ ছিলেন বিএনপি’র অভিজ্ঞ পার্লামেন্টারিয়ান ও রাজনৈতিক দিকপাল।

জানা যায়, রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ হ্রাস, বুকে ব্যথা অনুভব করলে গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর মওদুদকে ঢাকায় এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি সেখানে ডা. শাহাবুদ্দিন তালুকদারের অধীনে চিকিৎসা নেন। সেখানে তার হার্টে ব্লক ধরা পড়ায় তার হৃদযন্ত্রে স্থায়ী পেসমেকার বসানো হয়। চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি সিসিইউ থেকে তাকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়। ২০ জানুয়ারি হাসপাতাল থেকে বাসায় নেওয়া হয়। এরপর আবার ২১ জানুয়ারি তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ২ ফেব্রুয়ারি রাত ১২টায় সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে তিনি দেশ ছাড়েন। সেখানে দীর্ঘদিন আইসোলেশনে থেকে পরে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি।মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে তার স্ত্রী হাসনা জসিমউদদীন রয়েছেন।

জানা গেছে, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের লাশ বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে মরদেহ আনা হবে। মওদুদ আহমেদের ব্যক্তিগত সহকর্মী ব্যক্তিগত সহকারী মমিনুর রহমান সুজন এ তথ্য জানান।

এই বিভাগের আরও খবর